Showing all 3 results

  • ভালোবাসার হাট-বাজার

    রাহিতুল ইসলাম

    তথ্যপ্রযুক্তির ক্ষেত্রটাই আমার জগৎ। লেখালেখারি মাধ্যমে চেষ্টা করে যাচ্ছি পাঠকদের এই জগতের নানান জানা–অজানা কথা জানাতে—কখনো সংবাদপত্রে লিখে, কখনো বই লিখে। আমার চিন্তার সবটাজুড়েই আছে তথ্য ও প্রযুক্তি খাত।
    বেশ কয়েক বছর ধরে দেশের একটি শীর্ষ দৈনিকে সাংবাদিকতা করছি। তথ্যপ্রযুক্তি খাতকে লেখালেখির মাধ্যমে তুলে ধরায় পেয়েছি বিভিন্ন স্বীকৃতি ও সম্মাননা। সাংবাদিকতার পাশাপাশি লেখক হিসেবে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সফল গল্পগুলোও তুলে ধরছি এবং উপন্যাসে রূপ দিচ্ছি। এরই মধ্যে আমার আটটি বই প্রকাশিত হয়েছে। বেশির ভাগ বই–ই লেখা তথ্যপ্রযুক্তি জগৎ ঘিরে।
    আইটি সাংবাদিকতা করতে এসে দেখলাম, এই শিল্প খাত নিয়ে মানুষের মধ্যে খুব একটা সচেতনতা তৈরি হয়নি। আর তাই আমি এ বিষয় নিয়ে লিখতে শুরু করি। সাংবাদিকতার বাইরে এসে আমি এখন মৌলিক লেখার দিকে গুরুত্ব দিচ্ছি।
    আমি আমার লেখার মাধ্যমে বাংলাদেশের আইসিটি ইন্ডাস্ট্রির কথা দেশ ও দেশের বাইরের মানুষদের কাছে পৌঁছে দিতে চাই। আমার সবটুকু সময়ই শুধু তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সংবাদ সংগ্রহ ও এ ক্ষেত্রে নিত্যনতুন গল্প নিজের লেখনীতে তুলে ধরা।
    বর্তমানে আমি গুগল ডেভেলপার গ্রুপ (জিডিজি) বাংলার কমিউনিকেশন অ্যাসোসিয়েট ও সহকারী বাবস্থাপক এবং দেশের তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি খাতে কর্মরত গণমাধ্যমকর্মীদের সংগঠন বাংলাদেশ আইসিটি জার্নালিস্ট ফোরামের (বিআইজেএফ) নির্বাহী সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। আরও জানতে: www.rahitulislam.com ঠিকানায়।
    রাহিতুল ইসলাম

    ৳ 170৳ 200
  • মেয়েটি জিহাদে গিয়েছিল

    তন্ময় ইমরান
    জন্ম ১৯৮৩ সালের ৫ নভেম্বর, ঢাকার শান্তিনগরের ফরিদা ক্লিনিকে। বাবা মুহাম্মদ আলী জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশলী ছিলেন এবং মা আইরিন পারভীন গৃহিণী। নানার বাড়িতে বড় হয়েছেন।
    বন্ধুরা জনি নামেই ডাকে। কেতাবি নাম— হাবিব ইমরান। তবে তন্ময় ইমরান নামে সোশ্যাল মিডিয়ায় পরিচিত। তন্ময় নামে দাদাবাড়ির লোকজন ডাকে। সে কারণে এটি বেছে নেওয়া।
    মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এসএসসি এবং ঢাকার নটর ডেম কলেজ থেকে এইচএসসি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগ থেকে বিবিএ ও এমবিএ।
    ছোটবেলা থেকে লেখালেখির অভ্যাস। ‘দৈনিক আমাদের সময়’ দিয়ে পত্রিকায় চাকরি শুরু। এরপর দৈনিক যায়যায়দিন, কালের কণ্ঠ, ইন্ডিপেনডেন্ট টেলিভিশন ও একাত্তর টিভি হয়ে এখন সিনিয়র সাব এডিটর হিসেবে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমে কাজ করেন। প্রতিষ্ঠানটির প্রবাস পাতার সম্পাদক। এর পাশাপাশি একটি বিজ্ঞাপনী সংস্থার স্ট্রাটেজিক প্ল্যানিং বিভাগের ডিরেক্টর হিসেবেও কাজ করেছেন কিছুদিন।
    ছাত্রজীবনে বামপন্থী রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ‘দিয়াশলাই’ নামের একটি ছোটকাগজ বের করার সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। একাধিক গল্প নিয়ে টিভি নাটক হয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য— শহুরে সব গঙ্গা ফড়িং আর বুড়োঘোড়া।
    ‘মনফড়িং’ নামে একটি চিত্রনাট্য লিখেছেন, যা ২০১৭ সালে ইংরেজিতে দৈনিক ডেইলি স্টার পত্রিকার সেরা ফিকশন ফিল্ম ক্যাটাগরিতে প্রথম পুরস্কার পেয়েছে। দেশে-বিদেশে বেশ কয়েকটি পুরস্কার পাওয়া ‘মনফড়িং’ বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি আয়োজিত জাতীয় শিশু চলচ্চিত্র উৎসবেও সেরা সিনেমার পুরস্কার পেয়েছে।
    ‘মৃত্যু ও মিডিয়া এক্সপোজার’ তার প্রথম গল্পের বই। আর প্রথম উপন্যাস ‘মেয়েটি জিহাদে গিয়েছিল’।

    ৳ 340৳ 400
  • রবীন্দ্রসৃজনে বাংলাদেশ

    জন্ম : ১৯৮৯ সালের একুশে ফেব্রুয়ারি, বাংলাদেশের জামালপুর জেলার কুলকান্দি গ্রামে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে সহকারী অধ্যাপক হিসেবে কর্মরত। জামালপুর জিলা স্কুল থেকে এসএসসি (২০০৫), নটর ডেম কলেজ ঢাকা থেকে এইচএসসি (২০০৭), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগ থেকে স্নাতক সম্মান (২০১১) ও স্নাতকোত্তর (২০১২)। স্নাতক ও স্নাতকোত্তর উভয় পরীক্ষায় প্রথম শ্রেণিতে (সিজিপিএ) প্রথম স্থান। একই বিভাগের অধীনে ‘বাংলাদেশের উপন্যাসে সাতচল্লিশের রাজনীতি’ বিষয়ে পিএইচডি গবেষণারত। আগ্রহের বিষয় : সাহিত্যে আর্থ-রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক বাস্তবতা অনুসন্ধান এবং কবিতাপাঠ। প্রকাশিত কবিতার বই : শরীরী অশরীরী (২০১৪), অসময়ের ঘ্রাণ (২০১৯)। সম্পাদনা : শ্রেষ্ঠ গল্প সৈয়দ মুজতবা আলী (২০১৬)। সম্পাদিত সাহিত্যপত্র : বীজমন্ত্র (২০১১)।

    ৳ 187৳ 220